অনলাইনে শিক্ষা-কার্যক্রম চাঙ্গা করে তুলতে চান জুড়ীর নতুন ইউএনও

ইউএনও আল-ইমরান রুহুল ইসলাম
ছবি-এনএনবি বাংলা

সৌমিন খেলন : চলমান করোনা পরিস্থিতিতে থমকে গেছে মানুষের জীবনধারা। কর্মব্যস্ত আর যান্ত্রিক এই জীবনে চারদিকে এখন কেবলই স্থবিরতা! তবে বসে না থেকে পরিস্থিতি মোকাবেলা আর সঙ্কট কাটাতে নিরলস কাজ করে চলছেন বাংলাদেশ সরকার। জনস্বার্থে সরকারের সেই লক্ষ্য পূরণে বদ্ধপরিকর জেলা প্রশাসন।

ঝিমিয়ে বা হুমকির মুখে পড়া অর্থনৈতিক আর শিক্ষাব্যবস্থা সচল করতেও সরকারের পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসনের নেই চেষ্টার কোনো ত্রুটি। এরই ধারাবাহিকতায় মৌলভীবাজার জেলার জুড়ী উপজেলার শিক্ষাব্যবস্থা সচল করে তোলতে প্রত্যাশার কথা জানিয়েছেন নির্বাহী কর্মকর্তা। সম্প্রতি পুরনো কর্মস্থল নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলায় করোনাকে পরাজিত করে নতুন কর্মস্থল মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে যোগ দিয়েছেন ইউএনও আল-ইমরান রুহুল ইসলাম। নতুন কর্মস্থল তথা জুড়ী উপজেলায় কর্ম পরিকল্পনা নিয়ে এনএনবি বাংলায় তোলে ধরেন তিনি।

নতুন কর্মস্থলে কর্ম পরিকল্পনা নিয়ে এনএনবি বাংলায় তোলে ধরেন তিনি। এসময় বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আল-ইমরান রুহুল ইসলাম বলেন, ‘কর্মদিবস শুরু করে উপজেলার শিক্ষা-কার্যক্রম চাঙা করে তুলতে চাই। শিক্ষার্থীদের পড়ালেখা যেন আর বন্ধ না থাকে সেজন্য অনলাইনে চালু রাখা হবে শিক্ষা-কার্যক্রম।’

শিক্ষার্থীদের পড়াশোনা ছাড়াও করোনার করাল ঘ্রাসে ধসে যাওয়া পর্যটন ব্যবস্থা এবং অসহায় হয়ে পড়া সংশ্লিষ্টদের জীবনমান স্বাভাবিক করতে চান বলেও আশা ব্যক্ত করেন এই ইউএনও। পাশাপাশি কর্মহীন দুস্ত মানুষদের পাশে থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করে ইউএনও আল-ইমরান রুহুল ইসলাম জানান- করোনা পরিস্থিতি যতদিন থাকবে ততদিন-ই সরকারের নির্দেশ বাস্তবায়নে কাজ করবেন তিনি।

আল-ইমরান রুহুল ইসলাম এর আগে নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় জনস্বার্থে কাজ করতে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত হন তিনি। তবুও নিজের দায়িত্ব সুচারুভাবে পালন করেন ইউএনও আল-ইমরান রুহুল ইসলাম। তিনি জানান- আসছে সপ্তাহের মধ্যে জুড়ী উপজেলার নতুন ইউএনও হিসেবে নিজের প্রথম কর্মদিবস শুরু করবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *