খালেদা জিয়া কীভাবে দিয়েছিল ভবিষ্যৎ বাণী

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
এনএনবি বাংলা.কম
ফাইল ফটো

 

ঢাকা : ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় খালেদা জিয়া জড়িত ছিলো মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এক বক্তব্যে দাবি করেন, তাদের (বিএনপি) চক্রান্তই ছিল যে, আমাকে তারা হত্যা করে ফেলবে তাহলে তো আমি কিছুই হতে পারব না। জড়িত না হলে ‘ভবিষ্যৎ বাণী খালেদা জিয়া কীভাবে দিয়েছিল?’
খালেদা জিয়ার দেয়া অগ্রিম ভবিষ্যৎ বাণী নিয়ে প্রধানমন্ত্রী তার দেয়া বক্তব্যে জানান- যখন কোটালীপাড়ায় বোমা পুঁতে রাখা হয়েছিল তার আগে খালেদা জিয়া বলেছিল, আওয়ামী লীগ ১০০ বছরেও ক্ষমতায় আসতে পারবে না। আবার ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার পূর্বে তার বক্তব্য ছিল, শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী তো দূরের কথা, বিরোধী দলীয় নেতাও কোন দিন হতে পারবে না। প্রতিটি ঘটনার আগে তার বক্তৃতা যদি আপনারা অনুসরণ করেন এই কথাগুলোই বলেছে খালেদা জিয়া ; দাবি করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
গ্রেনেড হামলা নিয়ে তখন সংসদে কোনো কথা বলতে দেয়া হয়নি। দেশে এ রকম একটা ঘটনা ঘটে গেছে, আমি (শেখ হাসিনা) বিরোধী দলের নেতা। আমার ওপর এই রকম গ্রেনেড হামলা। বিরোধী দলে- বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মতো একটি দল, যে দল স্বাধীনতা এনে দিয়েছিল ; উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন- সেই (আ’লীগ) দলের সভায় এই রকম গ্রেনেড হামলা। আর তখনকার পার্লামেন্টের সংসদ নেতা, বলে দিলো— ওনাকে আবার কে মারবে? তখন তো বলতেই হয় আপনিই তো মারবেন। চেষ্টা করেছেন, ব্যর্থ হয়েছেন। তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করে তখন কোনো কথা বলতে দেয়নি এই গ্রেনেড হামলা সর্ম্পকে। এতে কী প্রমাণ হয়?
গ্রেনেড হামলার ভয়াবহতার কথা তুলে ধরে বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জানান- এই ধরনের গ্রেনেড হামলা বোধ হয় পৃথিবীতে আর কোথাও ঘটেনি। সাধারণত রণক্ষেত্রে, যুদ্ধক্ষেত্রে এই ধরনের ঘটনা ঘটে। কিন্তু আমাদের সেই র‌্যালিতে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী এবং আমাকে হত্যার উদ্দেশ্য নিয়েই এই ঘটনাটা ঘটিয়েছিল। ভাগ্যক্রমে আমি বেঁচে গিয়েছি। কিন্তু সেইদিন আইভী রহমানসহ আমাদের ২২ জন নেতাকর্মী শাহাদাৎবরণ করেছেন। সেই সাথে অনেক নেতাকর্মীরা আহত হয়েছেন, অনেকে আহতে হয়ে পরে মারা গেছেন।
মানুষের জন্য কিছু করার জন্যই আল্লাহ বাঁচিয়ে রেখেছেন মন্তব্য করে শেখ হাসিনা জানান- সারা দেশকে তারা একটা সন্ত্রাসের রাজত্ব করেছিল। আমি জানি না আল্লাহ কেন বাঁচিয়ে রেখেছেন। বাংলাদেশের মানুষের জন্য যাতে কিছু করতে পারি সেই জন্যই হয়তো বাঁচিয়ে রেখেছেন। নইলে এ রকম অবস্থা থেকে বেঁচে আসা এটা অত্যন্ত কষ্টকর।
২১ আগস্টকে ঘিরে বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউতে শুক্রবার (২১ আগস্ট) আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক আলোচনা সভায় হয়। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সেই আলোচনায় অংশ নেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এসময় তিনি এসব কথা বলেন। সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন- আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউ প্রান্তে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারাও উপস্থিত ছিলেন। এর আগে দলের নেতারা ২১ আগস্টের নিহতের স্মরণে অস্থায়ী সৌধে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *